Biz Tech 24 :: বিজ টেক ২৪

বিশ্বে স্মার্টফোন বিক্রিতে শাওমির চমক

বিজটেক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬:২৮, ৩১ জুলাই ২০২১

আপডেট: ১৬:০১, ২ আগস্ট ২০২১

বিশ্বে স্মার্টফোন বিক্রিতে শাওমির চমক

চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে বৈশ্বিক স্মার্টফোন বিক্রি হয়েছে প্রায় ৩৩ কোটি। কাউন্টারপয়েন্টের মার্কেট মনিটর প্রতিবেদনে দেখা গেছে, এশিয়া ও ইউরোপে চলমান করোনা বিধিনিষেধে সৃষ্ট উপকরণ সংকটে স্মার্টফোন বিক্রিতে প্রভাব পড়েছে।

কাউন্টারপয়েন্টের গবেষণা পরিচালক তরুণ পাঠক বলেন, দ্বিতীয় প্রান্তিকে বিক্রির দিক থেকে স্যামসাং শীর্ষস্থান ধরে রাখলেও তাদের বাজার শেয়ার ৩ শতাংশ কমে ১৮ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। ভারত, মধ্য আমেরিকা, লাতিন আমেরিকা ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মতো বাজারগুলোতে চালান কমায় স্যামসাংয়ের বাজার শেয়ারে এ প্রভাব পড়েছে। চীন, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও ইউরোপে শক্তিশালী বিক্রির জেরে এখন পর্যন্ত সেরা প্রান্তিক কাটিয়েছে চীনা ব্যান্ড শাওমি। তৃতীয় স্থানে থাকলেও অ্যাপল রেকর্ড পণ্য বিক্রি করেছে। বিশ্বজুড়ে আইফোন ১২ বিক্রির মাধ্যমে বেশ ভালো আয় করেছে অ্যাপল। শীর্ষ পাঁচে অবস্থান ধরে রেখেছে চীনা স্মার্টফোন কোম্পানি অপো ও ভিভো।

শাওমির রেকর্ড বিক্রি নিয়ে জ্যেষ্ঠ বিশ্লেষক হারমিত সিং ওয়ালিয়া বলেন, প্রিমিয়াম ও সাশ্রয়ী ব্র্যান্ডের সংযোগে প্রথমবারের মতো পাঁচ কোটিরও বেশি স্মার্টফোন বিক্রি করেছে চীনা স্মার্টফোন নির্মাতা জায়ান্টটি। ভারতের মতো বৃহৎ বাজারে করোনার প্রভাব সত্ত্বেও শাওমির বিক্রি চাঙ্গায় ভূমিকা রেখেছে ইউরোপ, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, মধ্য আমেরিকা ও লাতিন আমেরিকার মতো বাজার। স্যামসাং ও হুয়াওয়ের বাজার ভালোভাবেই দখল করতে সক্ষম হয়েছে শাওমি।

স্মার্টফোন বিক্রিতে সংখ্যায় শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক প্রযুক্তি জায়ান্ট স্যামসাং। তাদের স্মার্টফোন বিক্রি হয়েছে ৫ কোটি ৭৯ লাখ ইউনিট। বিক্রিতে বছরওয়ারি ৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হলেও প্রথম প্রান্তিকের বিপরীতে কমেছে ২৪ শতাংশ। অন্যদিকে অ্যাপলের স্মার্টফোন বিক্রি হয়েছে ৪ কোটি ৮৯ লাখ ইউনিট, যা প্রান্তিকওয়ারি ১৮ শতাংশ কমলেও বছরওয়ারি বেড়েছে ৩০ শতাংশ।

শীর্ষ পাঁচে অবস্থান ধরে রাখলেও অপোর স্মার্টফোন বিক্রি প্রান্তিকওয়ারি ১২ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ৩৬ লাখ। প্রথম প্রান্তিকে ১১ শতাংশ বাজার শেয়ার থাকলেও দ্বিতীয় প্রান্তিকে তা ১০ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। অপর চীনা স্মার্টফোন ব্র্যান্ড ভিভোর বিক্রি হয়েছে ৩ কোটি ২৫ লাখ ইউনিট।

premierbankltd