ঢাকা     ২৪ মার্চ ২০২৩ ||  ১০ চৈত্র ১৪২৯

Biz Tech 24 :: বিজ টেক ২৪

নতুন করে নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায় হুয়াওয়ে

বিজটেক ডেস্ক

প্রকাশিত: ২১:২৬, ৯ মার্চ ২০২৩

আপডেট: ১৫:৩০, ১৩ মার্চ ২০২৩

নতুন করে নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায় হুয়াওয়ে

স্পেনের বার্সেলোনায় অনুষ্ঠিত ‘মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস (এমডব্লিউসি)-২০২৩’ সম্মেলনে দর্শনার্থীদের নজরদারির অভিযোগ উঠেছে চীনা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে।

টেক টাইমসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২৩ সালের এমডব্লিউসিতে হুয়াওয়ের বুথে আসা দর্শনার্থীদের বুথ ত্যাগের সময় ব্যাজ ফেরত দিতে বলা হয়। তবে দর্শনার্থীদের মধ্যে যারা হুয়াওয়ের নিরাপত্তা ব্যাজ ফেরত দেননি, তারা এর ফিতার সঙ্গে সংযুক্ত সন্দেহজনক কিছু চিপ খুঁজে পেয়েছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে নতুন করে বিভিন্ন দেশের নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায় পড়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

নিউইয়র্ক সিটিভিত্তিক প্রযুক্তিবিষয়ক সংস্থা লাইট রিডিংয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, দর্শনার্থীরা তাদের কাছে থাকা ব্যাজের ওপর ছোট প্লাস্টিকের পাত্রে একটি ইলেকট্রনিক চিপ পেয়েছেন। এ দর্শনার্থীদের মধ্যে নকিয়া করপোরেশনের ইউরোপ অংশের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট রোল্ড ওয়ার্নারও ছিলেন। তিনি বলেন, ‘ব্যাজের ফিতার সঙ্গে থাকা চিপটি অবস্থান ট্র্যাকার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।’

বিষয়টি এমডব্লিউসিতে অংশ নেয়া দর্শনার্থীদের অসন্তুষ্ট ও অবাক করেছে। কেননা আগেও প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে তাদের পণ্যে এ ধরনের চিপ ব্যবহারের অভিযোগ ছিলো। রোল্ড ওয়ার্নারের পাশাপাশি অনেকেই টুইট পোস্টে হুয়াওয়ের ট্র্যাকারের ব্যাপারে হতাশা প্রকাশ করেছেন।

সেলফোন তথ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট ফোন অ্যারেনা জানিয়েছে, হুয়াওয়ে নিম্ন শক্তিসম্পন্ন বিকন প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে। প্রযুক্তিটি ৭০ মিটার দূরত্ব থেকে মানুষকে ট্র্যাক করতে পারে। তবে হুয়াওয়ে জানিয়েছে, দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা ব্যাজের সঙ্গে রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি ও ব্লুটুথ প্রযুক্তি ব্যবহার হয়েছে।

প্রযুক্তি সংবাদমাধ্যম গিজচায়না জানিয়েছে, স্বচ্ছতার অভাবের জন্য সমালোচিত হয়েছে হুয়াওয়ে। এ পরিস্থিতি প্রতিষ্ঠানটির অবস্থানকে আরো নেতিবাচক করবে। কেননা এরই মধ্যে তাদের বিরুদ্ধে সফটওয়্যারে গোপন চিপ ইনস্টল এবং ব্যবহারকারীর তথ্য চীনে পাঠানোর অভিযোগ রয়েছে। জাতীয় নিরাপত্তার কারণে মার্কিন কর্তৃপক্ষ অনেক আগেই হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

চীনা প্রযুক্তি জায়ান্টটির বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ পুরনো। ২০১৯ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার পর থেকে বেশ কয়েকটি দেশ ফাইভজি নেটওয়ার্কে হুয়াওয়ে প্রযুক্তি ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে।

জার্মানভিত্তিক সংবাদপত্র জেইট অনলাইনের প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরের শেষ নাগাদ যুক্তরাজ্যের নেটওয়ার্ক অপারেটরদের সব ধরনের হুয়াওয়ে কিট অপসারণ করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়া জার্মান সরকার টেলিকম অপারেটরদের তাদের নেটওয়ার্কগুলোয় হুয়াওয়ে ও জেডটিই কোম্পানির কিছু সরঞ্জাম ব্যবহার নিষিদ্ধ করার পরিকল্পনা করেছে।