ঢাকা     ২২ এপ্রিল ২০২৪ ||  ৯ বৈশাখ ১৪৩১

Biz Tech 24 :: বিজ টেক ২৪

আয়কর রিটার্ন না দিলে সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন-ভাতা বন্ধ

বিজটেক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৯:২৪, ১২ নভেম্বর ২০২৩

আপডেট: ১৯:২৬, ১২ নভেম্বর ২০২৩

আয়কর রিটার্ন না দিলে সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন-ভাতা বন্ধ

পিয়ন থেকে শুরু করে দারোয়ান কিংবা অফিস সহকারী- চলতি অর্থবছর থেকে সকল সরকারি চাকরিজীবীদের আয়কর রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে ই-টিআইএন সংগ্রহ করে রিটার্ন দাখিল না করলে সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন-ভাতা বন্ধ হয়ে যাবে।

এতোদিন সব সরকারি চাকরিজীবীদের রিটার্ন দাখিল করতে হতো না। যাদের মূলবেতন ১৬,০০০ টাকা বা তার বেশি শুধুমাত্র তাদের জন্য রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক ছিল।

চলতি অর্থবছরে নতুন আয়কর আইন করেছে সরকার। তার বিভিন্ন ধারায় সকল গণকর্মচারীর জন্য রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক করে বলা হয়েছে, গণকর্মচারীর বেতন ভাতাদি প্রাপ্তিতে রিটার্ন দাখিলের প্রমাণ জমা দিতে হবে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কর্মকর্তারা জানান, যেসব কর্মচারীর বেতন করসীমার চেয়ে কম, তাদের কোন কর দিতে হবে না। তবে সবাইকে রিটার্ন দাখিল করতে হবে।

এ নির্দেশনার পর করমুক্ত আয়সীমার চেয়ে কম বেতনভুক্ত কর্মচারীদের মধ্যে ভীতি কাজ করছে বলে জানা গেছে। সরকারি অফিসের অনেক পিয়ন, দারোয়ান ও অফিস সহকারীরা ঘুষ লেনদেনের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। বেতন কম হওয়া সত্ত্বেও নিজের নামে বড় অংকের অর্থ সঞ্চয়পত্র সহ বিভিন্ন জায়গায় বিনিয়োগ রয়েছে, তাদের উৎকণ্ঠা আরও বেশি।

সকল সরকারি কর্মচারীর জন্য রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক করার বিধানকে যৌক্তিক বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, অনেক অল্প বেতনধারী কর্মচারীর একাধিক বাড়িসহ বিপুল সম্পদ রয়েছে। তাদের বেতনের বাইরে আরও আয় থাকতে পারে। রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক করায় সরকার তার সম্পদের তথ্য পাবে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, গতবছর সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর সংখ্যা ১৩,৯৬,৮১৮ জন। এর মধ্যে ১১তম গ্রেড থেকে ২০তম গ্রেড পর্যন্ত কর্মচারীর সংখ্যা ১২,১৭,২৬৪ জন। ১১তম থেকে ২০তম গ্রেডের প্রারম্ভিক মূলবেতন ৮২৫০ টাকা থেকে ১৬০০০ টাকা পর্যন্ত, যা করমুক্ত আয়সীমার চেয়ে কম। চলতি অর্থবছর করমুক্ত আয়সীমা ৩.৫০ লাখ টাকা।